আসিফের সঙ্গে দেখা করে স্ত্রী মিতু যা বললেন

[ad_1]

সোস্যাল মিডিয়ায় আলোচনা সমালোচনায় কণ্ঠশিল্পী আসিফ আকবর। সঙ্গীতশিল্পী শফিক তুহিনের করা মামলাতে গত ৫ জুন রাতে কণ্ঠশিল্পী আসিফকে গ্রেফতার করে পুলিশ। শফিক তুহিন এবং আসিফ দুইজনেই হচ্ছেন জাতীয় পুরস্কার পাওয়া সঙ্গীত শিল্পী।

একদিন তিনি নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করে বীরের মতই ফিরে আসবেন। আমরা চেষ্টা করছি তার জামিনের। আসিফ উচ্চ রক্তচাপে ভুগছেন। ৫ জুন রাত থেকে তিনি ঔষধ ছাড়াই কারাগারে রয়েছেন, যেকোনো সময় রক্তচাপ অনিয়ন্ত্রিত হয়ে আরও বেশি অসুস্থ হয়ে যেতে পারেন তিনি।

বুধবার আসিফের আইনজীবীরা আদালতে এ সংক্রান্ত একটি চিকিৎসা সনদ পেশ করেন। তাকে সাধারণ কায়েদিদের সঙ্গে একই সেলে রাখা হয়েছে।’ কথাগুলো বলতে রাজি ছিলেন না আসিফ পত্নী।

তিনি ক্ষোভ নিয়ে বলেন, ‘ইন্ডাস্ট্রির আমি কাকে না রান্না করে খাইয়েছি? আমার রান্নাঘর অবদি ছিল সকলের যাতায়াত। টেবিলে বসলে আমি নিজ হাতে সকলের খাবার তুলে দিতাম প্লেটে। কে আপন কে পর এমন ভেদাভেদ তো আমার পরিবারের কখনো ছিল না। আমার ছেলেরা আপন চাচার মতই সবাইকে শ্রদ্ধা করতো। আজ কি তার প্রতিদান পাচ্ছি?’

ঘটনার পর কী দেখা হয়েছে তাঁর সঙ্গে? ‘ভিতরে দেখা করতে গিয়েছিলাম। আমাকে দেখে সে আশ্চর্য্য। জিগ্যেস করলো ‘তুমি এখানে কেন এসেছো? আর কারা কারা আসছে। আমি কথা বলতে পারছিলাম না। আরে তুমিতো অসুস্থ, কেন আসছো?

আমি কিছুদিন আগেই ডাক্তার দেখিয়ে এসেছি ভারত থেকে। নিজের প্রতি কনফিডেন্ট আর দৃঢ় মনোবল নিয়ে হাস্যজ্জল আসিফ বললো`চলে যাও আমি ভালো আছি আমার কিচ্ছু হবেনা’ আমি ভেঙ্গে পড়লাম না, খুব কষ্টে নিজেকে সামলে নিয়ে চলে আসি ‘

 

তিনি আরও বলেন,জামিন আবেদন না-মঞ্জুর হবার পরেও মিডিয়ার প্রায় অর্ধশত ক্যামেরার মাধ্যমে সবাই দেখলো তার চমৎকার মানসিক দৃঢ়তা, অমলিন হাসি। তিনি আসলে কতটা বড় মনের, কতটা উদার। তার অবস্থান থেকে সে কতটা সৎ ছিলো সেটাও একদিন দেখবে এদেশের মানুষ।’

ফেসবুক আর ইন্টারনেট নিয়ে তিনি বলেন,‘ তিনি ইন্টারনেটের কিচ্ছু বুঝেননা। লাস্ট কয়েকবছর ফেসবুকে যতটুকু একটিভ হয়েছেন, সেইটা স্পেশালি আমার জন্য। এমনকি ওর পাসওয়ার্ডও আমি জানি। ফেসবুকে পাসওয়ার্ড টাইপ করতেও আমাদের হেল্প লাগে।

বুথে টাকা তুলতে কার্ড ঢুকাই দিতে হবে পিনকোড চাপতে হবে হ্যানত্যান ঝামেলার কারণে তিনি কার্ড-ই ইউজ করেননা। “ধুরু এইসব কি টাকা থাকলে আমার পকেটে থাকবে, এসব আমাকে দিয়ে হবেনা“ সেই মানুষের সরল সহজতা নিয়ে আর কিইবা বলার আছে।’

রাজনীতি নিয়ে তিনি বলেন, এইসব ঝামেলার জন্য আসিফ রাজনীতি থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে রেখেছিলেন। প্রায় পাঁচবছর আগে মহাসচিব বরাবর আবেদন করে প্রত্যাহার করে নিয়েছেন নিজের রাজনৈতিক পরিচয়।’

জেলখানায় যাওয়ার কথা উল্লেখ করে বলেন, ‘কারারক্ষীদের কয়েকজন বলল, আসিফ গাড়ি থেকে লাফ দিয়ে বীরের মত ভেতরে ঢুকেছে। আমি অবাক হইনি তাকে এভাবে ভিতরে যেতে। জানি সে এগুলো ভয় পায় না।’তবে আসিফ কবে ছাড়া পাচ্ছেন এ ব্যপারে কিছু বলেন নি।

[ad_2]

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here