Sunday, October 24, 2021
Homeখবরগাজী রাকায়েতের মামলায় তরুণীর অপেক্ষা!

গাজী রাকায়েতের মামলায় তরুণীর অপেক্ষা!

[ad_1]

মেসেঞ্জারের বার্তা দেয়ার স্ক্রিনশট প্রকাশকারী তরুণীর বিরুদ্ধে মামলা করেছেন নাট্যনির্মাতা গাজী রাকায়েত। তবে এই ঘটনায় পুলিশের তদন্ত শেষ হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে বলেছেন ওই তরুণী।

রাজধানীর আদাবর থানায় ১৬ মার্চ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে একটি মামলা দায়ের করেছেন গাজী রাকায়েত। ‘উদ্দেশ্যপ্রণোদিত কথোপকথনের’ স্ক্রিনশট প্রকাশ করার অভিযোগ করেছেন তিনি।

আদাবর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহীন শেখ প্রিয়.কমকে জানান, ৫৭ ধারায় মামলা করা হয়েছে। মামলার নম্বর ১৮।

ওসি জানান, এজাহারে গাজী রাকায়েত অভিযোগ করেছেন, ‘গত ৯ মার্চ দুপুরে এক তরুণী ফেসবুকে তার বিরুদ্ধে অশ্লীল, ইঙ্গিতপূর্ণ ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত কয়েকটি কথোপকথনের সংলাপ ছবি আকারে প্রকাশ করে।

আমি পেশায় একজন শিল্পী, চলচ্চিত্র নির্মাতা এবং জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে পুরস্কারপ্রাপ্ত। এই সংলাপের ছবি সম্বলিত অ্যালবাম অত্যন্ত সুপরিকল্পিতভাবে আমার অর্জিত সম্মানকে বিনষ্ট করার লক্ষ্যে প্রকাশ করা হয়েছে। এটি সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত। এ ছাড়া এ ধরনের কর্মকাণ্ড বাংলাদেশের সামগ্রিক সাংস্কৃতিক অঙ্গনের ভাবমূর্তির জন্য হুমকিস্বরূপ।’

এর আগে গাজী রাকায়েত দাবি করেছিলেন, তার আইডি হ্যাক করা হয়েছে এবং ৬ মার্চ থেকে তিনি ফেসবুকে ঢুকতে পারছিলেন না। এ ছাড়াও নিজের ফেসবুক আইডি হ্যাক হয়েছে জানিয়ে ১২ মার্চ সোমবার রাজধানীর আদাবর থানায় জিডি করেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে গাজী রাকায়েতের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

মেসেঞ্জারে অশ্লীল বার্তা দেয়ার অভিযোগ তুলেছিলেন যে তরুণী, তিনি ফেসবুকে এ বিষয়ে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। স্ট্যাটাসে তিনি লিখেছেন, ‘একজন বরেণ্য অভিনেতা-নির্মাতার ফেসবুক আইডি থেকে মাঝরাতে একজন নারীকে ফেসবুকে অশ্লীল প্রস্তাব দেওয়া নিয়ে আমার দেওয়া পোস্টের ফলোআপ জানতে চেয়েছেন অনেকেই।

আমি আগেই জানিয়েছিলাম ডিরেক্টরস গিল্ড, অভিনয় শিল্পী সংঘ এবং টেলিভিশন প্রোগ্রাম প্রডিউসার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ–এই তিনটি সংগঠন আমাদের সাথে আলোচনা করে বিষয়টি তদন্তের দায়িত্ব নিয়েছিল। আমরা তাদের একটা সময় বেঁধে দিয়েছিলাম তদন্ত শেষ করার। সেই সময় শেষ হয়ে গেলেও তারা সরাসরি তদন্তের কোন ফলোআপ আমাদের জানায়নি। লাইভে এসে তারা যে বক্তব্য দিয়েছে সেটাও আমাদের কাছে গ্রহণযোগ্য নয়।

তাই ভিকটিম নিজে পুলিশের সাইবার সিকিউরিটি এন্ড ক্রাইম ডিভিশনে অভিযোগ করেছে এ বিষয়ে। পুরো বিষয়টি এখন সাইবার সিকিউরিটি এন্ড ক্রাইম ডিভিশনে তদন্তাধীন থাকায় আপাতত কাউকে কোনো তথ্য দিতে পারছি না। তবে খুব তাড়াতাড়ি পুলিশের তদন্ত শেষ হবে এবং সত্য সামনে আসবে বলে আশা করছি। সেই পর্যন্ত সবাই অপেক্ষা করি।’

[ad_2]

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments