নওগাঁ ধামইরহাট পৌরসভায় ডেঙ্গু প্রতিরোধে মশা মারার উদ্যোগ নেই

মো: আশিক আহমেদ রাজু, নওগাঁ

0
42
All-focus

নওগাঁর ধামইরহাট পৌরসভার উদ্যোগে ডেঙ্গ প্রতিরোধে মশা মারার কোন উদ্যোগ চোখে পড়েনি। পৌর এলাকার ড্রেনগুলো যেন মশা জন্মানোর কারখানায় পরিণত হয়েছে। এদিকে মশা মারার ফগার মেশিন নষ্ট হয়ে পড়ে রয়েছে। এক্ষুনি মশা মারার উদ্যোগে গ্রহণ করা না হলে যে কোন সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাহিতে যেতে পারে।

জানা গেছে, গত জুলাই মাসের ১৪ তারিখ থেকে সারা দেশের পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিভিন্ন দাবীতে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট চলছে। ফলে ধামইরহাট পৌরসভার সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকায় পৌরবাসীর দূর্ভোগের শেষ নেই। ময়লা আবর্জনা না সরানোর ফলে রাস্তা এখন ময়লার ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে। এছাড়া ড্রেনগুলোতে ডেঙ্গু প্রতিরোধে মশা মারার প্রয়োজনীয় ঔষধ প্রয়োগ করা হচ্ছে না। ফলে ড্রেনগুলো বর্তমানে মশা জন্মানোর কারখানায় পরিণত হতে চলেছে। তাছাড়া দির্ঘদিন ধরে মশা মারার একমাত্র ফগার মেশিনটি বিকল হয়ে পড়ে রয়েছে। পৌরসভার অন্তর্গত মাটির ড্রেনগুলোতে পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি জমে থাকে। সেগুলোতে এডিস মশা জন্ম নিয়ে পারে। সেই সব ড্রেনগুলোতে মশা প্রতিরোধে ঔষধ প্রয়োগ করা দরকার। ফগার মেশিন নষ্ট থাকায় পরিস্থিতি মোকাবেলায় ড্রেনগুলোতে ব্লিচিং পাউটার ছিটানো উচিত। বিশেষ ধামইরহাট কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের পুর্ব পার্শে ড্রেনটি সংস্কারের জন্য পৌর সভায় পক্ষ থেকে ড্রেনে বিছানো ইটগুলো তুলে নেয়া হয়েছে। কিন্তু প্রায় দেড় মাস ধরে ওই ড্রেনটি আর কোন কাজ করা হয়নি। বর্তমানে ড্রেনটি অরক্ষিত অবস্থায় পড়ে রয়েছে। ফলে ওই ড্রেনের মাটিতে গর্তেও সৃষ্টি হয়ে পানি জমে থাকছে। ধামইরহাট পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মো.কামরুজ্জামান বাদল বলেন,তার বাড়ীর সামনের ড্রেনটি এখন ময়লা আবর্জনার ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে। ময়লা আবর্জনার দূগন্ধে বাড়ীতে থাকা মুশকিল হয়ে পড়েছে। তাছাড়া মশা মারার উদ্যোগ না থাকায় মহল্লাবাসী চিন্তিত হয়ে পড়েছে। পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডেও বাসিন্দা আনিছুর রহমান বলেন,এলাকাবাসীকে সচেতন করার পাশাপাশি বিভিন্ন ড্রেন ও ছোট ছোট গর্ত যেখানে পানি জমে থাকা সেই এলাকাগুলোতে এক্ষুনি মশা মারার ঔষধ প্রয়োগ করা দরকার।
ধামইরহাট পৌরসভার সেনেটারী ইন্সপেক্টর মো.মোস্তাফিজুর রহমান বলেন,প্যানেল মেয়রের সিদ্ধান্ত মোতাবেক মশা নিধনের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে। বিকল ফগার মেশিনটি মেরামতের উদ্যোগে নেয়া হয়েছে।
ধামইরহাট পৌরসভায় কাউন্সিলর মো.আব্দুল হাকিম বলেন,পৌর মেয়র পবিত্র হজ্জ্বব্রত পালনের জন্য বর্তমানে সৌদি আরবে অবস্থান করছেন। তাছাড়া সারা দেশের ন্যায় ধামইরহাট পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটে রয়েছে। সেক্ষেত্রে দৈনন্দিন কাজের ব্যাঘাত ঘটছে। পৌরসভার কাউন্সিলরদের উদ্যোগে নিজ নিজ ওয়ার্ডে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান ও জনগণকে সচেতন করার লক্ষ কাজ করা হয়েছে। নষ্ট ফগার মেশিনটি মেরামতের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবাব পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা.মো.আসাদুজ্জামান বলেন,এখন পর্যন্ত এ উপজেলায় ডেঙ্গ জ্বরে আক্রান্ত কোন রোগির সন্ধান পাওয়া যায়নি। তবে যে কোন পরিস্থিতির জন্য আমাদের প্রস্তুতি রয়েছে। স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে জনগণকে সচেতন করার জন্য আমরা কাজ করছি। পৌরসভার দায়িত্ব এডিস মশা নিধনের দায়িত্ব।

এব্যাপারে ধামইহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার গনপতি রায় বলেন,যেহেতু সারা দেশে পৌরসভাগুলোতে ধর্মঘট চলছে। তিনি আশার করছেন জাতির ক্রাইসিস মুর্হুতে ২/১ দিনের মধ্যে সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীরা পৌরসভার কাজে যোগদান করবেন। বাহির থেকে ফগার মেশিন সংগ্রহ করে দ্রুত উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এডিস মশা নিধনের কার্যকরী পদক্ষেপ ২/১ দিনের মধ্যে নেয়া হবে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here