নায়ক রাজ রাজ্জাকের জন্মদিন আজ

0
403


কিংবদন্তী অভিনেতা নায়করাজ রাজ্জাক আজো বাংলার প্রতিটি মানুষের মনের ঘরে প্রিয় নায়ক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়ে আছেন। এদেশের চলচ্চিত্রে, নাটকে, গানে কিংবা সাহিত্যে অনেক তারকা শিল্পীই আছেন। কিন্তু সবার মধ্যমণি হয়ে আছেন নায়করাজ। তার প্রাণবন্ত ও সাবলীল অভিনয় আজো সবার হৃদয়পটে দৌলা দেয়।

বেঁচে থাকলে আজ ২৩ জানুয়ারি মঙ্গলবার নায়ক রাজ রাজ্জাক ৭৭-এ পা রাখতেন। কিন্তু তার আগেই তিনি তার ভক্ত, দর্শক, সহকর্মী, পরিবারের মানুষজনসহ সবাইকে কাঁদিয়ে ওপারে চলে যান গত বছরের ২১ আগস্ট।

রাজ্জাকের জন্ম কলকাতার সিনেমাপাড়া টালিগঞ্জে। অর্থাৎ জন্মের পর থেকেই অভিনয়ের সঙ্গে সখ্যতা। মঞ্চের সঙ্গে জড়িত থাকলেও স্বপ্ন ছিল সিনেমাকে ঘিরে। টালিগঞ্জের সিনেমাশিল্পে তখন ছবি বিশ্বাস, উত্তম কুমার, সৌমিত্র, বিশ্বজিতদের যুগ। সেখানে হালকা-পাতলা সাধারণ রাজুর অভিনয় সুযোগ পাবার কোনো সম্ভাবনাই ছিল না।

তার হঠাৎ চলে যাওয়ায় চলচ্চিত্রে এক বিশাল শূণ্যতার সৃষ্টি হয়। অভিভাবকহীন হয়ে পড়ে চলচ্চিত্রাঙ্গন। এমন বটবৃক্ষের ন্যায় মহান নায়কের চলে যাওয়াটা চলচ্চিত্রের জন্য অভিভাবকহীন হয়ে পড়ারই মতো। তাই মহান এই নায়ককে তার দেশের সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে ভক্ত দর্শক কেউই ভুলেনি।

FB_IMG_1503326266188

আজ মহান এই নায়কের জন্মদিনে তার পরিবারের সদস্যরা নানান উদ্যোগ নিয়েছে। নায়ক রাজের জীবনের শেষ ক’টি বছরে যে সবসময়ই তার পাশে ছিলেন তিনি হচ্ছেন তার ছোট ছেলে খালিদ হোসেন সম্রাট।

সম্রাট জানান, আজ সকালে রাজধানীর বনানীর কবরস্থানে যেখানে নায়ক রাজ চিরনিদ্রায় শুয়ে আছেন সেখানে পরিবারের পক্ষ থেকে কোরআন পাঠ ও দোয়া করা হবে। বাদ যোহর গুলশান আজাদ মসজিদ সংলগ্ন মাদ্রাসার শিক্ষার্থী, অন্যান্য এতিম, গরীবদের দুপুরের খাবারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। বাদ আছর গুলশান আজাদ মসজিদেই নায়ক রাজের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া করা হবে।

সম্রাট বলেন, আব্বার জন্য শুধু সবার কাছে দোয়া চাই যেন মহান আল্লাহ আমার আব্বাকে বেহেস্ত নসীব করেন। এমন একজন বাবার সন্তান হয়ে সবসময়ই আমি গর্ববোধ করি। সন্তান হিসেবে বাবার স্মৃতি নিয়ে যেন সারাটা জীবন ভালোভাবে থাকতে পারি এই দোয়া চাই।

এদিকে শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান জানান, আজ সকালে নায়ক রাজের কবরস্থানে শিল্পী সমিতির পক্ষ থেকে ফুলেল শ্রদ্ধা জানানো হবে। এরপর এফডিসিতে ফিরে শিল্পী সমিতির সামনে নায়ক রাজের স্মৃতিফলকে ফুলেল শ্রদ্ধা জানানো হবে। এফডিসিতে বাদ আছর জামে মসজিদে মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে।

জায়েদ আরো জানান, নায়ক রাজ রাজ্জাকের নামে এফডিসির কোনো একটি ফ্লোর যেন নামকরণ করা হয় তা নিয়ে আজ এফডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালকের সঙ্গে আলোচনা করা হবে।

তিনি বলেন, নায়ক রাজ রাজ্জাক আমাদের চলচ্চিত্রের মহান প্রাণপুরুষ। তিনিই আমাদের সকল নায়কের আদর্শ। তার হঠাৎ চলে যাওয়ায় যে শূণ্যতা তৈরি হয়েছে তা কোনোভাবেই পূরণ করা সম্ভব নয়। গত ২১ জানুয়ারি শিল্পী সমিতির নতুন উপদেষ্টা কমিটি গঠনের সময় আমরা সবাই মহান এই নায়ককে আত্মা দিয়ে অনুভব করেছি। তার অনুপস্থিতিতে যে শূণ্যতা তৈরি হয়েছে তা উপলদ্ধি করেছি সবাই।

নায়ক রাজ রাজ্জাক গত বছরের ২১ আগস্ট অনেকটা হঠাৎ করেই সবাইকে কাঁদিয়ে পরপারে চলে যান। প্রয়াত কিংবদন্তী সাংবাদিক আহমদ জামান চৌধুরী ছিলেন নায়ক রাজ রাজ্জাকের ঘনিষ্ঠ বন্ধু। তিনিই রাজ্জাককে ‘নায়ক রাজ’ উপাধি দিয়েছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here