Saturday, October 23, 2021
Homeজাতীয়ফখরুল কী করে জানলেন, রায় কী হবে: ওবায়দুল কাদের

ফখরুল কী করে জানলেন, রায় কী হবে: ওবায়দুল কাদের

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘মির্জা ফখরুল সাহেব কী করে জানলেন, এই মামলার রায় কী হবে? এই মামলায় আদালত খালেদা জিয়াকে সাজা দেবে, এ রকম নিশ্চয়তা তাঁকে কে দিল?’

আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে ওবায়দুল কাদের এ মন্তব্য করেন। প্রাণিসম্পদ সপ্তাহ ২০১৮-এর সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ওবায়দুল কাদের।

নয়াপল্টনে আজ দুপুরে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর অভিযোগ করেন, বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মামলার রায় পূর্বনির্ধারিত। এই অবৈধ সরকার আগেই রায় লিখে রেখেছে। বিচার হবে প্রধানমন্ত্রী যা চাইবেন, তাই।

এ বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম আগেভাগেই কী করে জানলেন খালেদা জিয়ার সাজা হবে? আদালত নির্দোষও করতে পারেন, সাজাও দিতে পারেন—এটা আদালতের বিষয়। এখানে সরকারের কোনো হস্তক্ষেপ নেই। তিনি বলেন, সরকার এ পর্যন্ত বিচার বিভাগে কোনো হস্তক্ষেপ করেনি। সুপ্রিম কোর্ট ষোড়শ সংশোধনীর রায় কী দিয়েছেন, সবাই জানে। এটা কি সরকারের পক্ষে?

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, এই মামলাটিতে মির্জা ফখরুল বারবার বলার চেষ্টা করছেন যেন শেখ হাসিনা সরকার এই মামলাটি রুজু করে খালেদা জিয়াকে হেনস্তা করছে। তাঁদের রাজনীতি থেকে দূরে সরিয়ে রাখার চেষ্টা করছে। বিএনপি বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। তিনি বলেন, এই মামলাটি প্রথম দায়ের হয়েছিল ফখরুদ্দীন-মইনুদ্দিনের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়। এটি ছিল দুদকের মামলা। মামলা তো এই সরকার দেয়নি। মামলা দিয়েছে খালেদা জিয়া যাদের তখন…ফখরুদ্দীনও তাঁর সৃষ্টি, মইন উ আহমেদ সাহেবও তাঁর সময় অনেককে ডিঙিয়ে সেনাবাহিনী প্রধান হয়েছিলেন।

ওবায়দুল কাদের প্রশ্ন করেন, ‘মামলা তার নিজস্ব গতিতে চলছে। খালেদা জিয়া নির্দোষ হলে তো আমাদের কোনো অসুবিধা নেই। তিনি সাজা পেলে আমরা কীভাবে রক্ষা করব? শেখ হাসিনা সরকারের এখানে কী? তাহলে কি আদালত রায় দিতে পারবেন না? আদালত এ দেশে বিচার করতে পারবেন না?’ তিনি বলেন, ‘বিএনপি আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করবে? প্রতিবাদ করবে? খালেদা জিয়াকে আমরা ভয় পাই না, ভয় পাই ২০১৩-১৪ সালের পেট্রলবোমাকে। ভয় পায় দেশের মানুষ। তখনকার আগুনসন্ত্রাসকে মানুষ ভয় পায়। বিএনপির নেতিবাচক রাজনীতিকে আওয়ামী লীগ ভয় পায়, খালেদা জিয়াকে আওয়ামী লীগ ভয় পায় না।’

খালেদা জিয়া ইতিবাচক রাজনীতি করলে কোনো অসুবিধা নেই উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘কেন আমরা তাদের বাধা দেব? নির্বাচন হবে। বিএনপি অংশ নেবে। প্রতিদ্বন্দ্বিতাবিহীন নির্বাচন আমরা চাই না। বিএনপি আসুক, একটি বড় দল। আমরা একটি ইনক্লুসিভ, পার্টিসিপেটরি, ফ্রি অ্যান্ড ফেয়ার ইলেকশন আমরা চাই। খালেদা জিয়াকে আমরা সরিয়ে রাখব, তখন তারা আগুন তাণ্ডব চালিয়ে একটি নির্বাচন বয়কট করতে গিয়ে কী করেছিল? কতগুলো স্কুল, ভূমি অফিস জ্বালিয়ে দিয়েছিল? কতগুলো মানুষকে পুড়িয়ে মেরেছিল, বলুন? এই নারকীয় তাণ্ডবকে আমরা ভয় পাই, খালেদা জিয়াকে না।’

ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, আদালতের রায় মনমতো না হলে আবারও বিএনপি সন্ত্রাস শুরু করবে? তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের সচেতন জনগণ এবার প্রতিরোধ করবে।’

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন বিশেষ অতিথি মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি মীর শওকাত আলী, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বাহাউদ্দিন নাছিম প্রমুখ। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব মাকসুদুল হাসান খান।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments