ফেছবুকে খবর পেয়ে অসহায় দুই পরিবারের ঘরে সাতদিনের খাবার পৌছে দেন ময়মনসিংহের এসপি আহমার উজ্জামান

এম এ আজিজ, স্টাফ রিপোর্টার, ময়মনসিংহ

0
143

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ ও ঝুকিরোধে সরকারী টান বন্ধের ১০দিন ছিল শনিবার। কর্মহীন মানুষগুলো যেন চুখেমুখে অন্ধকার দেখছে। দিন এনে দিন খাওয়া অসংখ্য পরিবার অর্ধাহারে অনাহারে দিন পার করছে। সরকারীভাবে নগরীর প্রতিটি ওয়ার্ড ও প্রতিটি ইউনিয়নে ত্রাণ বিতরণ চলছে। বেসরকারীভাবে সাহায্য করতে অনেক মানুষ যার যার অবস্থা থেকে এগিয়ে আসছে।

এই অবস্থায় ময়মনসিংহ রেঞ্জ ও জেলা পুলিশ সরকারী দায়িত্বের পাশাপাশি নিজেদের অর্থায়নে অসহায়, ছিন্নমূল, বস্তিবাসিদের মাঝে চাল, ডাল, আলু, তেল লবন ঘরে ঘরে পৌছে দিচ্ছে। এছাড়া গত চারদিন ধরে রাতে রান্না করা খাবার প্যাকেট নিয়ে নগরীর রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে বিতরণ করছে ডিবি পুলিশ। শহরে ইতিমধ্যেই প্রচারণায় এসেছে ময়মনসিংহ পুলিশ মানবিক এবং অসহায়দের কল্যাণে এই করোনা ক্রান্তিতে পুলিশি দায়িত্বের পাশাপাশি মাঠে নেমে যতটুকু পারছে সহায়তা করছে।

এমনি সময় শনিবার পুলিশ সুপার আহমার উজ্জামানের ফেইসবুক ম্যাসেঞ্জারে পৃথক দুটি খবর আসে। একটি ময়মনসিংহ সদরের দাপুনিয়া ইউনিয়নের কাতলাসেন বাজার সংলগ্ন এলাকার অপরটি বিভাগীয় নগরীর রামা বাবু রোডের দুটি পরিবার এবং ঐ পরিবারগুলোর সদস্যরা না খেয়ে রয়েছে। ম্যাসেঞ্জারে স্থানীয় একজন পুলিশ সুপারকে উদ্দেশ্য করে বলেন, আসসালামু আলাইকুম। ময়মনসিংহ সদর উপজেলাধীন দাপুনিয়া ইউনিয়নের কাতলাসেন চরপাড়া (কাতলাসেন বাজারের পুর্বপাশে) গ্রামের ৬ সদস্যের একটি পরিবার।

পরিবারের প্রধান উপার্জনকারী ব্যক্তি গাড়ি এ্যাকসিডেন্টে এক পা হারিয়ে দীর্ঘদিন ধরে মানবেতর জীবনযাপন করছে। এই পরিবারে উপার্জনে সম কোন সদস্য নেই। দেশের এই দুর্যোগপূর্ণ মুহুর্তে এই পরিবারটির নিকট কোন ত্রাণ সহায়তা পৌছেনি। ময়মনসিংহ জেলার ডিসি ও এসপি মহোদয়সহ দানশীল পরিবারের কাছে এই পরিবারটি সাহায্যে এগিয়ে আসতে আহবান জানানো হয়। অপরটি হলো বিভাগীয় নগরীর রামবাবু রোড, ময়মনসিংহ সিটির ৭ং ওয়ার্ড। তার স্বামী বিজয় গোপাল রায় ১৯৯৯ সনে মারা গেছেন। স্বামী হারা স্ত্রী অসহায় অবস্থায় দিন কাটালেও টানা ১০দিনের বন্ধে স¤পূর্ণ বেকার হয়ে অর্ধাহারে অনাহারে কাটাচ্ছে।

পুলিশ সুপার জেলা পুলিশের ম্যাসেঞ্জারে এ দুটি পরিবারের করুন অবস্থার কথা জেনে মুহুর্তেই ডিবি পুলিশকে পাঠিয়ে ত্রাণসহ খবর নিতে বলেন। ডিবি পুলিশের ওসি শাহ কামাল আকন্দের তাৎনিক পদেেপ শনিবার দুপুরে এই দুটি পরিবার পুলিশের প থেকে সাতদিনের খাবার পান। ডিবিও ওসি আরো জানান, জেলা পুলিশ নিজস্ব অর্থায়নে অসহায়দের মাঝে খাদ্য সহায়তা করে আসছে। এছাড়া রাতে ছিন্নমূল ও বস্তিবাসিদের মাঝে রান্না করা খাবার বিতরণ করা হচ্ছে। সমাজের বিত্তবানদেরকে অসহায় পরিবারগুলোর পাশে এসে দাড়ানোর আহবান জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here