Saturday, October 16, 2021
Homeআন্তর্জাতিকবিভিন্ন দেশ থেকে শতাধিক রুশ কূটনীতিক বহিষ্কার

বিভিন্ন দেশ থেকে শতাধিক রুশ কূটনীতিক বহিষ্কার

[ad_1]

যুক্তরাজ্যের রুশ কূটনেতিক বহিষ্কারের পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্বের ২০টির বেশি দেশ শতাধিক রুশ কূটনৈতিক কর্মকর্তা বহিষ্কার করার ঘোষণা দিয়েছে। এই তালিকায় সর্বশেষ যুক্ত হয়েছে অস্ট্রেলিয়া।

রাশিয়ার সাবেক গুপ্তচর সের্গেই স্ক্রিপাল ও তার মেয়ের ওপর সোভিয়েত আমলের দুর্লভ নার্ভ এজেন্ট দিয়ে হামলা করার পরিপ্রেক্ষিতে চলতি মাসের শুরুতে ২৩জন রুশ কূটনৈতিক বহিষ্কার করে যুক্তরাজ্য। তারই ধারাবহিকতায় বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে এ পর্যন্ত ১৩৭জন রুশ কূটনীতিককে বহিষ্কার করা হয়েছে।

তবে সবচেয়ে বেশি মোট ৬০ জন কূটনীতিক বহিষ্কারের আদেশ দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। বলা হচ্ছে, এই প্রথম রাশিয়ার এতো বেশি সংখ্যক কূটনীতিককে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে একসঙ্গে বহিষ্কার করা হচ্ছে।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর এই প্রথম ইউরোপে রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করে কাউকে হত্যার চেষ্টাকে খুবই দুঃখজনক বলে সমালোচনা করেছেন অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী ম্যালকম টার্নবুল। দেশটি ‘অজ্ঞাত গোয়েন্দা কর্মকর্তা’ সন্দেহে দুই রুশ কূটনীতিককে বহিষ্কার করছে।

এদিকে এ আচরণকে উস্কানিমূলক বলে অভিহিত করে রাশিয়া জানিয়েছে, শিগগিরিই পাল্টা ব্যবস্থা নেবে তারা। সের্গেই স্ক্রিপালকে হত্যাচেষ্টায় জড়িত থাকার অভিযোগ শুরু থেকেই অস্বীকার করে আসছে রাশিয়া।

গত সপ্তাহে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) নেতারা রাশিয়ার নার্ভ এজেন্ট ব্যবহারের বিষয়টিতে একমত হন। যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে বলেন, রাশিযার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন সরকার আমাদের সবার স্বার্থ ও রীতির বাইরে গিয়ে মহাদেশের ভেতরে ও বিশ্বব্যাপী বিদ্বেষ ছড়াচ্ছে। ইউরোপের একটি সার্বভৌম গণতান্ত্রিক দেশ হিসেবে যুক্তরাজ্য ইইউ ও ন্যাটোর সাথে এই হুমকির প্রতিরোধ করবে।

রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, দেশটি মনে করে এ পদক্ষেপ বিরোধিতার সম্পর্ক তৈরির ধারাবাহিক অংশ। সেই সঙ্গে এ আচরণকে ‘অবন্ধুত্বপূর্ণ’ উল্লেখ করে, এ ব্যবস্থায় অংশ নেয়া সব দেশের বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে হুশিয়ারি দিয়েছে দেশটি।

এ মাসের শুরুতে ২৩ জন রুশ কূটনীতিক বহিষ্কারের ঘোষণা দেয় যুক্তরাজ্য। সোমবার আরো কয়েকটি দেশ ঘোষণা দেয় তারাও একই ধরনের পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে। এই দেশগুলো হলো- যুক্তরাষ্ট্র ৬০ জন, ফ্রান্স চারজন, জার্মানি চারজন, পোল্যান্ড চারজন, চেক প্রজাতন্ত্র তিনজন, লিথুয়ানিয়া তিনজন, ডেনমার্ক দুইজন, নেদারল্যান্ডস দুইজন, ইতালি দুইজন, স্পেন দুইজন, এস্তোনিয়া একজন, ক্রোয়েশিয়া একজন, ফিনল্যান্ড একজন, হাঙ্গেরি একজন, লাটভিয়া একজন, রোমানিয়া এক, সুইডেন একজন।

এছাড়া ইউক্রেন ১৩ জন, কানাডা চারজন, আলবেনিয়া দুইজন, অস্ট্রেলিয়া দুইজন, নরওয়ে একজন ও মেসিডোনিয়া একজন করে কূটনীতিক বহিস্কারের ঘোষণা দিয়েছে।

আইসল্যান্ড ঘোষণা দিয়েছে, তারা রাশিয়ার সাথে উচ্চ পর্যায়ের কূটনৈতিক আলোচনা স্থগিত করছে। তাদের রাষ্ট্রীয় নেতারা জুনে রাশিয়ায় অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া বিশ্বকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টেও যাবে না। এ মাসের শুরুতে যুক্তরাজ্যও জানিয়েছে, তারা মন্ত্রী বা রাজপরিবারের সদস্যদের বিশ্বকাপে পাঠাবে না।

অস্ট্রিয়া, গ্রীস ও পর্তুগাল জানিয়েছে, তারা তাদের দেশ থেকে কোনো রুশ কূটনৈতিককে বহিষ্কার করবে না। তবে যুক্তরাজ্যের প্রতি পূর্ণ সমর্থন প্রকাশ করেছে তারা।

এর আগে ১৯৮৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট রোনাল্ড রিগ্যান স্নায়ুযুদ্ধকালীন ৮০ জন রুশ কূটনৈতিক বহিষ্কার করেন। ২০১৬ সালে বারাক ওবামা প্রশাসন হিলারি ক্লিনটনের ২০১৬ সালের নির্বাচনী প্রচারণা হ্যাক করার অভিযোগে ৩৫ জন কূটনীতিক বহিষ্কার করেন। তবে মস্কো এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে। সূত্র: বিবিসি

[ad_2]

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments