মুক্তিযুদ্ধের অকৃত্রিম বন্ধু ফাদার রিগনের ২য় মৃত্য বার্ষিকি কাল

জসিম উদ্দিন,বাগেরহাট ব্যুরোঃ

0
74

মুক্তিযুদ্ধের অকৃত্রিম বন্ধু, শিক্ষানুরাগী, কবি ও সাহিত্যিক ফাদার রেভাঃ মারিনো রিগন এস এক্স এর ২য় মৃত্যু বার্ষিকী রবিবার (২০ আক্টোবর) । ফাদার রিগন জন্মসূত্রে ইতালি নাগরিক হলেও বাংলাদেশ সরকার ২০০৮ সালে তাঁকে সম্মানসূচক নাগরিকত্ব প্রদান করেন। এছাড়া ২০১২ সালে মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ অবদানের জন্য বাঙালী জাতির শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতার নির্দশন স্বরূপ বাংলাদেশ সরকার তাঁকে মুক্তিযুদ্ধ মৈত্রী সম্মাননা প্রদান করা হয়। লালনের সাড়ে তিনশো গান, গীতাঞ্জলিসহ রবীন্দ্রনাথের ৪৮টি বই এবং কবি জসিম উদ্দিনের নক্সীকাঁথার মাঠ, নির্বাচিত কবিতা, সোজন বাদিয়ার ঘাট ইতালি ভাষায় অনুবাদ করে বাংলা সাহিত্যে উচ্চ আসনে আসীন হয়ে আছেন ফাদার মারিনো রিগন এস এক্স। ২০১৭ সালের ২০ অক্টোবর ফাদার মারিনো রিগন চিকিৎসারত অবস্থায় ইতালিতে মৃত্যুবরণ করেন। ২০১৮ সালের ২১ অক্টোবর ফাদার রিগনের মরদেহ বাংলাদেশ সরকারের বিশেষ প্রচেষ্টায় ইতালি থেকে এনে মোংলার শেলাবুনিয়ায় রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত করা হয়।
ফাদার মারিনো রিগন এস এক্স এর দ্বিতীয় মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে আজ রবিবার দিনব্যাপী সেন্ট পল্স উচ্চ বিদ্যালয়, ফাদার মারিনো রিগন শিক্ষা উন্নয়ন ফাউন্ডেশন, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট ও মোংলা পোর্ট পৌরসভার যৌথ আয়োজনে নানা কর্মসুচি পালনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।

ফাদার মারিনো রিগন ১৯২৫ সালে ৫ ফেব্রæয়ারি ইতালির ভিল্লাভের্লা গ্রামের এক সংস্কৃতিমনা পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। খ্রিস্টের মঙ্গলময় বানী প্রচারের উদ্দ্যেশ্যে নিয়েই তিনি তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে অর্থ্যাৎ আজকের বাংলাদেশে আসেন। এরপর দেশের বিভিন্ন স্থান ঘুরে অবশেষে বাগেরহাটের মোংলা থানার শেলাবুনিয়া গ্রামে স্থায়ী আবাস গড়ে তোলেন। আমৃত্যু তিনি মোংলার শেলাবুনিয়াতেই ছিলেন। তাঁর হাত দিয়েই প্রতিষ্ঠিত হয়েছে মোংলার স্বনামখ্যাত স্কুল সেন্ট পল্স উচচ বিদ্যালয়। তাঁর প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ সহযোগিতায় মোংলা এলাকায় গড়ে উঠেছে আরো ১৭টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, তাঁর উদ্যোগে সজীব হয়ে উঠেছে শেলাবুনিয়া শেলাই কেন্দ্র ও সেন্ট পল্স হাসপাতাল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here