Friday, October 22, 2021
Homeরাজনীতিসরকার বিএনপি ভাঙবে না, আপনারাই ভাঙবেন: কামরুল

সরকার বিএনপি ভাঙবে না, আপনারাই ভাঙবেন: কামরুল

[ad_1]

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রায় ঘোষণার পর থেকেই গঠনতন্ত্র পরিবর্তনের মধ্য দিয়েই দল ভাঙনের সুর বেজে উঠেছে বলে দাবি করে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সদস্য ও খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম বলেছেন, বিএনপি দল সরকার ভাঙবে না, আপনারাই ভাঙবেন এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র।

রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে সোমবার বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের এক আলোচনা সভায় তিনি এমন দাবি করেন।

কামরুল বলেন, যারা যারা আপনাদের দলের ঐক্য বজায় রাখার জন্য চেষ্টা করছেন, তাদের বলছি ঐক্য থাকবে না। ফেরারি আসামি দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন হওয়ার পর থেকে আপনাদের দলের মধ্যে কানাঘুষা শুরু হয়েছে। আপনাদের দলের সিনিয়র নেতারা বিকল্প চিন্তা ভাবনা করতে বাধ্য। আপনারা দলের গঠনতন্ত্র যে দিন সংশোধন করেছেন সেদিন থেকে আপনাদের দলে ভাঙনের সুর আমরা শুনতে পাচ্ছি।

বিএনপি চেয়ারপারসনের রায় ঘোষণার তারিখ নির্ধারণ হওয়ার পর দলের পক্ষ থেকে সংশোধিত গঠনতন্ত্র নির্বাচন কমিশনে জমা দেয়া হয়। সংশোধিত গঠনতন্ত্রে পূর্বের ৭নং ধারা বাতিল করা হয়েছে।

এ নিয়ে কামরুল বলেন, সরকার আপনাদের দল ভাঙবে না, সরকারের পক্ষ থেকে কোনো ধরণের প্রচেষ্টার প্রয়োজন হবে না। এটা আমি স্পষ্ট বলতে পারি। কিন্তু আপনাদের পদক্ষেপগুলোর মধ্যে দল ভাঙ্গার পেরেকটা আপনারাই পুতে দিয়েছেন। কতদিন পর আপনাদের দল ভাঙবে এটা এখন দেখার বিষয়। দেশের উৎফুল্ল জনতা এবং সাংবাদিকরা এর অপেক্ষায় আছে।

তিনি বলেন, আপনাদের দলের বিবেকবান নেতারা কোনোভাবেই একজন ফেরারি আসামিকে নিয়ে থাকবে না। বিবেকবান সমর্থক ও যারা দুর্নীতিবাজ পছন্দ করে না, তারা কোনোভাবেই পাশে থাকবে না। যারা দুর্নীতি পছন্দ করে না তারা পদক্ষেপ নেবেই, এটা সময়ের ব্যাপার মাত্র।

তিনবারের প্রধানমন্ত্রী জেলে থাকার ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে সরকারের এই মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী কারাগারে আছেন এটা নিয়ে তারা বিভিন্ন কথাবার্তা বলতে পারে, তাদের লজ্জা না হতে পারে কিন্তু রাজনৈতিক কর্মী হিসেবে আমরা লজ্জা বোধ করি এবং অত্যান্ত দুঃখ প্রকাশ করছি। এটা কোনো রাজনৈতিক প্রতিহিংসার রায় নয়, এই মামলাটি ছিল তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ের।

বিএনপির আইনজীবীরা প্রচ্ছন্নভাবে, উদ্দেশ্যমূলকভাবে এই মামলার বিচারকার্য নির্বাচনের বছরে শেষ করেছে দাবি করে তিনি বলেন, উদ্দেশ্যমূলকভাবে আজকে নির্বাচনের বছর অহেতুক মাঠ গরম করার জন্য, সময় ক্ষেপন করে এই মামলার রায় এই সময় পর্যন্ত নিয়ে এসেছে। এখানে তাদের অসৎ উদ্দেশ্য ছিল।

খালেদা জিয়াকে নির্বাচনের বাইরে আওয়ামী লীগ দেখতে চায় না দাবি করে আওয়ামী লীগের এই কেন্দ্রীয় নেতা বলেন, আজকে আমরা স্পষ্ট বলতে চাই, আমরা বেগম খালেদা জিয়াকে নির্বাচনের বাইরে রেখে নির্বাচন করতে চাই না। শুধু বেগম খালেদা জিয়া কেন, বাংলাদেশের সকল নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ করুক এটাই আমরা চাই। একটা অবাধ, সুষ্ঠ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে, নির্বাচন কমিশন শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন পরিচালনা করবে এবং আমাদের প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনকালীন সরকারের প্রধানের দায়িত্ব পালনের মধ্য দিয়ে একটা অবাধ নিরপেক্ষ নির্বাচন হবে এটাই আমরা চাই।

বিএনপি নির্বাচনে না আসলে আওয়ামী লীগের কিছু যায়-আসে না দাবি করে কামরুল বলেন, সংবিধান থেকে বেরিয়ে যাওয়ার কোনো সম্ভাবনা নাই, সংবিধান অনুযায়ী শেখ হাসিনা নির্বাচনকালীন সরকারের দায়িত্ব পালন করবেন। নির্বাচনে যদি বিএনপি না আসে তাহলে আমাদের কিছু করার নাই। আগামী নির্বাচন সঠিক সময়ে অনুষ্ঠিত হবে এটা নিয়ে কোনো সন্দেহ নাই।

তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়া নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারবে, কি পারবে না সেটা সুপ্রিম কোর্ট ও নির্বাচন কমিশন বলতে পারবেন। আইনে যা আছে সেটাই হবে। তিনি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন, কি করবেন না সেটা আমাদের দেখার বিষয় না। বিএনপি নির্বাচনে না আসলে আমাদের কিছু যায় আসে না।

তিনি আরো বলেন, বিএনপি যদি আবারো নির্বাচনে না আসে, নির্বাচনকে যদি ব্যাহত করার চেষ্টা করে, আন্দোলনের নামে যদি কোনো উত্তেজনার সৃষ্টি করে তাহলে তার পরিণতি ভয়াবহ হবে। বিএনপির এটাই অন্তিম সময় হবে।

লায়ন চিত্তরঞ্জন দাসের সভাপতিত্বে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের এই আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন- আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী সামসুল হক টুকু, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক অরুণ সরকার রানা প্রমুখ।

[ad_2]

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments