সিরিয়ার বিরুদ্ধে বল প্রয়োগের শপথ নিলেন ট্রাম্প

[ad_1]

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সিরিয়ায় পূর্ব গৌতার দৌমায় ‘রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের’ জবাবে দেশটির বিরুদ্ধে দ্রুত বলপূর্বক পদক্ষেপ গ্রহণের শপথ নিয়েছেন। আশঙ্কা করা হচ্ছে তার এই পদক্ষেপ সামরিক হতে পারে।

সোমবার সামরিক নেতা ও জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টাদের সঙ্গে এক বৈঠকে ট্রাম্প এ কথা বলেন।

তিনি জানান, সোমবার মধ্যরাতে কিংবা এর কিছু পরেই তিনি সিরিয়াকে জবাব দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেবেন। সিরিয়ায় সামরিক পদক্ষেপ গ্রহণে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে অনেক উপায় আছে।

ট্রাম্প বলেন, ‘যে ধরনের নৃশংসতা আমরা প্রত্যক্ষ করেছি তা চলতে দিতে পারি না … আমাদের এই বিশ্বে এ ধরনের ঘটনা আমরা হতে দিতে পারি না … বিশেষত যুক্তরাষ্ট্রের ক্ষমতার কারণে, আমাদের দেশের ক্ষমতার কারণে, যখন আমরা এটি বন্ধ করার সামর্থ্য রাখি।’

সিরিয়ায় কয়েকটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন জানিয়েছে, শনিবার দেশটির রাজধানী দামেস্কের কাছে দৌমায় রাসায়নিক অস্ত্রের হামলায় কমপক্ষে ৭০ জন নিহত হন। আহত হন হাজারের বেশি লোক।

তবে সিরিয়া ও তাদের ঘনিষ্ঠ মিত্র রাশিয়া ‘রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের’ এই অভিযোগকে ‘বানোয়াট’ ও ‘মিথ্যা’ বলে অভিহিত করেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রাথমিক মূল্যায়নে ওই হামলায় সত্যিই রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহৃত হয়েছে কি না, কিংবা এ হামলার পেছনে সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদ আছেন কি না, তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

তবে ট্রাম্প জানিয়েছেন, ওই হামলার পেছনে কারা ছিল সে সম্পর্কে ‘আরো স্বচ্ছ তথ্য’ পাচ্ছে ওয়াশিংটন।

যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ওয়াশিংটন সিরিয়ায় বহুজাতিক সামরিক পদক্ষেপ নেওয়ার চিন্তা-ভাবনা করছে। ২৪ ঘণ্টারও কম সময়ের মধ্যে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোর সঙ্গে টেলিফোনে আলাপ করেছেন।

এর আগে সোমবার মন্ত্রিসভার এক বৈঠকে ট্রাম্পকে জিজ্ঞাসা করা হয়, রাসায়নিক হামলার জন্য রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের কোনো দায়ভার আছে কি না। জবাবে ট্রাম্প বলেন, ‘থাকতে পারে, হ্যাঁ, তার দায়ভার থাকতে পারে। তবে সত্যিই যদি তিনি দায়ী হয়ে থাকেন, অনেক শক্ত পদক্ষেপ নেওয়া হবে, অনেক শক্ত।’

তথ্য : রয়টার্স

[ad_2]

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here